* ভগবান শ্রীকৃষ্ণ *
! ! ! ! ! ! ! ! ! !

ঈশ্বরঃ পরমঃ কৃষ্ণঃ সচ্চিদানন্দবিগ্রহঃ ।
অনাদিরাদির্গোবিন্দঃ সর্ব্বকারণকারণম্।।

Krishna vs Arjun @ Gita Bhogoban Krishner Picture Bhogoban Krishner Picture
*

ভগবান শ্রীকৃষ্ণ : সর্বাপেক্ষা য্শস্বী

          

শ্রীকৃষ্ণের অপর নাম 'উত্তমশ্লোক'৷ এই পৃথিবীতে, ব্রহ্মাণ্ডের নানা লোকে, অনন্ত কোটি ব্রহ্মাণ্ডে এবং চিন্ময় জগতের বৈকুণ্ঠ গ্রহলোকে সবচেয়ে বিদগ্ধ মহাত্মাগণ সবচেয়ে সুন্দর সুন্দর শ্লোকে নিরন্তর শ্রীকৃষ্ণের যশোমহিমা গান করে থাকেন৷

ভগবান গর্ভোদকশায়ী বিষ্ণুর শয্যা-স্বরূপ অনন্ত শেষ তার সহস্র বদনে স্মরণাতীত কাল ধরে শ্রীকৃষ্ণের যশোমহিমা গান করছেন, কিন্তু এখনো তিনি ভগবানের মহিমার অন্ত পান নি৷

শ্রীমদ্ভাগবতের দশম স্কন্ধে ভগবান বলেন, "একজন বিজ্ঞানী ব্রহ্মাণ্ডের সমস্ত পরমাণুও গণনা করতে সক্ষম হতে পারেন, আমার মহিমা বর্ণনা করতে কেউই সমর্থ নয়৷"

একজন কবি গেয়েছেন যে আমরা যদি আকাশকে কাগজ হিসাবে ব্যবহার করি, বিশ্বের সমস্ত বৃক্ষগুলিকে লেখনী আর সমস্ত মহাসমূদ্রগুলিকে কালি হিসাবে ব্যবহার করি, তবুও সেগুলি ভগবানের গুণগাথার বর্ণনা এমনকি শুরু করার পক্ষেও যথেষ্ট হবে না৷

মহাভারতে, শ্রীকৃষ্ণের মহিমা বর্ণনার সময় বিষ্ণু সহস্র নাম (শ্রীকৃষ্ণের এক হাজার নাম) স্তোত্র কীর্তন করেন৷ এই নামগুলির প্রতিটিই ভগবানের অচিন্ত্য অপ্রাকৃত গুণ-মহিমা ব্যক্ত করছে৷**

------------------------------------------------

** পৃথিবীতে আজ পর্যন্ত এমন কেউ জন্মগ্রহণ করেনি, যে শ্রীকৃষ্ণের মতো য্শখ্যাতি লাভ করতে পেরেছে৷ সারা ভারতে শ্রীকৃষ্ণের যশমহিমা প্রচারের জন্য লক্ষাধিক মন্দির রয়েছে৷ শুধু বৃন্দাবনেই রয়েছে পাঁচ হাজার মন্দির৷ পৃথিবীর এমন কোনো দেশ, কোনো শহর নেই, যেখানে শ্রীকৃষ্ণের দিব্য শ্রীমন্দির নেই৷ পৃথিবীর প্রাচীনতম সাহিত্য বেদ, ১০৮ উপনিষদ, ১৮ টি পুরাণ বা পৌরাণিক ইতিবৃত্ত, প্রাচীনতম মহাকাব্য রামায়্ণম্ ও মহাভারতম্, শ্রীমদ্ভাগবত সহ শতশত গ্রন্থ শ্রীকৃষ্ণের মহিমা প্রচার করছে৷ বেদে পরম পুরুষ ও তাঁর শক্তিরাজি ধারণকারী দেবদেবীর মহিমা বর্ণিত হয়েছে এবং বলা হয়েছে যে শ্রীকৃষ্ণই ব্রহ্মাণ্ডের প্রথম জীব ব্রহ্মাকে বেদ-জ্ঞান প্রদান করেন, অতীতে বেদ শিক্ষা দেন

(যো ব্রহ্মানং বিদধাতি পুর্বম্ যে ধব বেদাংশ্চ গাপয়তিচন্দ্রস্ম কৃষ্ণঃ-

অথর্ববেদ)৷ শ্রীরাম শ্রীকৃষ্ণের অবতার, উভয়ে অভিন্ন, (ভগবান দুইজন নন- একমেবাদ্বিতীয়্ম্- বেদ), সেজন্য রামায়্ণও শ্রীকৃষ্ণের মহিমা বর্ণনা করছে৷

------------------------------------------------

ভগবান শ্রীকৃষ্ণ : পরম সুন্দর

          

ভগবদ্ গীতাতে শ্রীকৃষ্ণ স্বয়ং তাঁর রূপের দ্বিভূজ নরাকার রূপকে দুর্লভ দর্শন বলেছেন

(সুদুর্দর্শম্ ইদং রূপং-১১/৫২)৷

ব্রহ্মসংহিতায় তাঁর রূপের অনবদ্য বর্ণনা রয়েছে- তিনি ত্রিভঙ্গললিত, গোপবেশ তাঁর মস্তক ময়ূর-পুচ্ছ যুক্ত উষ্ণীষ-শোভিত, তাঁর নয়্নদ্বয় পদ্মের পাপড়ির মতো আয়্তাকার ও সুকোমল, তাঁর গলদেশে শোভমান বৈজয়ন্তীমালা, তাঁর সুন্দর অধরে শোভিত মোহন মুরলী; তাঁর গাত্র বর্ণ ঘন মেঘের মতো নীলাভ, তিনি দিব্য আভরণ ভূষিত সুন্দরাঙ্গ, তিনি নিত্য-নব-নবায়্মান যৌবন সম্পন্ন৷ বস্তুতঃ, যুগ-যুগান্ত ধরে শিল্পে-সাহিত্যে, ভাস্কর্যে, চিত্র-কলায়, নাট্যে-সঙ্গীতে পৃথিবীর মানুষ শ্রীকৃষ্ণের অনুপম রূপ-মহিমার গুণ-গান করে আসছে৷

পরবর্তী বিবরণ

*ভগবান শ্রীকৃষ্ণ*
! ! ! ! ! ! ! ! ! !

সাইট-টি আপনার ভাল নাও লাগতে পারে, তবুও লাইক দিয়ে উৎসাহিত করুনঃ

শেয়ার করে প্রচারে অবদান রাখতে পারেন

Say something

Please enter name.
Please enter valid email adress.
Please enter your comment.