স্বপ্নিল হৃদয়ের স্বপ্নপুরী

সাধারণের জন্য উন্মুক্ত / অসাধারণেরা দূরে থাকুন-

স্বপ্নপুরী বিনির্মাণের কাজ শুরু হচ্ছে; সকলের অংশগ্রহণ এবং পরামর্শ জরুরী ।


*
Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri Road

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

Sopnopuri_images

পূর্বোল্লিখিত বিবরণের পর -

স্বপ্নিল-- হ্যাঁ তোমার নিকট সবই বলবো, আমার যতটুকু সাধ্য আছে সকল বিষয়ে তোমায় পরিষ্কার করেই বলবো। একটু ধৈর্য্য ধরে শোন, একে একে সবই বলবো। এখানে RMM Vote বলতে বুঝানো হয়েছে Registered Mobile Message Vote. খুবই সজহ ব্যাপার- নিশ্চয়ই বুঝতে পারছ এধরনের ভোট করার জন্য যেকোন ভোটারকে তার যেকোন একটি মোবাইল নম্বরকে আগে নিবন্ধন করিয়ে নিতে হয়। নিবন্ধন প্রক্রিয়াটা তোমায় একটু পরে বলছি। আর তাছাড়া RMM Vote এবং কমিটির সদস্যের মতামত একত্র করে সিদ্ধান্ত নেয়ার ব্যাপারটাও একটু পরে বুঝতে পারবে। এখন শোন এধরনের ভোট করার জন্য প্রথমে কি করতে হয়।



RMM Vote ভোট করার জন্য আগে একটি ইউনিক উদ্দেশ্য কোড (Purpose Vote Code) সেট করতে হয়। এটি নির্বাচন কমিশনের ইমেইল থেকে বা সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক কমিটির সভাপতির রেজিস্টার্ড ইমেইল থেকে একটি নির্দিস্ট ছক পূরণ করে ইমেইল পাঠাতে হয় পূর্বেই।অর্থাৎ নির্বাচন কমিশনের Purpose Vote Code সেট করার জন্য তাঁদের নির্দিস্ট ইমেইল থেকে এই PurposeVoteCode_EC@MainServer.net ইমেইলে মেইল পাঠাতে হয়।

আবার অনুরূপভাবে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক কমিটির সভাপতিকেও নির্দিস্ট ইমেইল-এ সংশ্লিষ্ট ব্যাপারে নির্দিস্ট ছক পূরণ করে ইমেইল পাঠাতে হয়। মূল সার্ভারের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা যথাসময়ে উক্ত Purpose Vote Code সেট করার জন্য সংশ্লিষ্ট ছকের তথ্য মূল সার্ভারে এন্ট্রি দিলে একটি স্বয়ংক্রিয় কোড নং পেয়ে থাকেন। এরপর তিনি সেটি রিপ্লাই মেইল অর্থাৎ প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক কমিটির সভাপতির রেজিস্টার্ড ইমেইল-এ অথবা নির্বাচন কমিশনের নির্দিস্ট ইমেইলে পাঠিয়ে দেন। এদিকে সেই Purpose Vote Code টি পাওয়ার সাথে সাথে সংশ্লিষ্টরা অর্থাৎ নির্বাচন কমিশন অথবা সাংবাদিক কমিটির সভাপতি RMM Vote এর জন্য ঘোষণা করে দেন এবং সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমে তা প্রচারের নির্দেশও দিয়ে থাকেন।


হৃদয়-- আচ্ছা বন্ধু কারো বিরুদ্ধে কোন প্রকার অন্যায় বা অপরাধ প্রমাণিত হওয়ার পূর্বেই তার সম্পর্কে যদি এমন প্রচার হতে থাকে তবে বিষয়টা একটু বাড়াবাড়ি হয়ে গেল না?

স্বপ্নিল-- দেখ হৃদয়- সাধারণভাবে এটাই ধরে নেয়া হয় যে, বিনা কারণে কেউ কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ করে না। তাছাড়া তিনটি গণমাধ্যমেও নেতিবাচক কোন প্রতিবেদনও প্রকাশ করবে না যদি কোন প্রকার দোষ ত্রুটি খুঁজে না পায়। এছাড়া যেহেতু বিষয়টা নিয়ে বিজ্ঞজনেরা এমন সিদ্ধান্তেই একমত হয়েছেন তাই নিশ্চয়ই এর কোন সুফল অবশ্যই আছে। এব্যাপারে আমার যেটা মনে হয় তা হলো- সকলকে সচেতন করা বা বলতে পারো একজনকে লজ্জা দেওয়ার মাধ্যমে অন্যদেরকে শিক্ষা দেওয়া। আর এজন্যই এমনভাবে সকলের নিকট বলে বেড়ানো বা প্রচার করার ব্যবস্থা।


তবে প্রকৃত সত্য ব্যাপারটা যাতে উঠে আসে তার জন্য সকলেরই আন্তরিক চেষ্টা থাকতে হবে- অবশ্য সত্য কখনও চাপা থাকে না, দুই দিন আগে আর পিছে সেটা প্রকাশ পাবেই।

হৃদয়-- হ্যাঁ বন্ধু তুমি ঠিকই বলেছ। এক্ষেত্রে অনেকেই যে কোন প্রকার অন্যায় করার আগে অন্ততঃ একবার হলেও তার আত্মীয়-স্বজন, পরিবার-পরিজনের কথা ভাববে। তাঁদের নিকট, সমাজের নিকট ছোট হতে কেই-বা চাইবে তাইতো ? আচ্ছা এরপর কি করা হয়?

পৃষ্ঠা নং- ১৫ ,  পরবর্তী বিবরণ

* * * Anupamasite-এ আপনাকে স্বাগতম। আপনার পছন্দমত যে কোন ধরনের লেখা পোস্ট করতে এখানে ক্লিক করুন।   আপনাদের পোস্ট করা লেখাগুলো এই লিংকে আছে, দেখতে এখানে ক্লিক করুন। ধন্যবাদ * * *

জ্ঞানই শক্তি ! তাই- আগে নিজে জানুন , শেয়ার করে প্রচারের মাধ্যমে অন্যকেও জানতে সাহায্য করুন।

Say something

Please enter name.
Please enter valid email adress.
Please enter your comment.